More

    কিভাবে বাংলাদেশী টাকায় বিটকয়েন বিনিময় করবেন

    বাংলাদেশী টাকায় বিটকয়েন বিনিময় করার সবচেয়ে সহজ উপায় হল আপনার বিটকয়েন বিক্রি করা। আপনি

    যদি আপনার বাংলাদেশী ক্রেতার কাছে আপনার বিটকয়েন বিক্রি করেন, তাহলে তিনি আপনাকে বাংলাদেশী টাকায় পরিশোধ করবেন।

    তাহলে আপনি বাংলাদেশী টাকায় বিটকয়েন বিনিময় করতে পারেন। কিন্তু ক্রেতা খোঁজা বেশ ঝামেলার।


    কিন্তু আপনাকে খুঁজে বের করার এই সমস্যার সমাধানে বাংলাদেশের অনেক ওয়েবসাইট এগিয়ে এসেছে।

    আপনি যদি চান, আপনি এই ওয়েবসাইটগুলির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন অথবা তাদের সিস্টেমে যেতে

    পারেন এবং তাদের কাছে আপনার বিটকয়েন বিক্রি করে সেগুলোকে বাংলাদেশী টাকায় রূপান্তর করতে পারেন

    চলমান রেট অনুযায়ী তারা আপনাকে আপনার বিটকয়েনের মূল্য দেবে। কিন্তু আপনারা অনেকেই বাংলাদেশের

    বিশ্বস্ত বিটকয়েন ক্রেতা ওয়েবসাইটের নাম জানেন না। কিছু বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট বিটকয়েনকে বাংলাদেশী

    টাকায় বিনিময় করতে বাংলাদেশে অনেক ওয়েবসাইট আছে যেগুলো বিটকয়েন এবং অন্যান্য দেশের জাতীয় মুদ্রাসহ অন্যান্য ক্রিপ্টোকারেন্সি কেনে।

    কিন্তু সবাই বিশ্বস্ত নয়, এমন কিছু আছে যারা মানুষের কাছ থেকেডলার নেয় এবং মূল্য দেয় না।
    তাই এগুলো এড়িয়ে চলাই ভালো। আজ আমি আপনাকে কিছু বিশ্বস্ত বিটকয়েন বিনিময় ওয়েবসাইট সম্পর্কে

    বলতে যাচ্ছি যা আসলে আপনার কাছ থেকে বিটকয়েন কিনবে এবং আপনাকে ন্যায্য মূল্য দেবে।

    BTC থেকে BDT

    একটি ওয়েবসাইট যা সম্প্রতি বাংলাদেশে বিটকয়েন সহ অন্যান্য মুদ্রা কেনা -বেচার জন্য এগিয়ে এসেছে।

    যদিও অনলাইনে তাদের সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানা না গেলেও তারা বেশ বিশ্বস্ত। তাদের কিছু বৈশিষ্ট্যও

    আছে যা আপনি বাংলাদেশের অন্যান্য অনেক ওয়েবসাইটে পাবেন না।
    ব্যাংক, ক্রেডিট কার্ড সহ অন্য যে কোন মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে তারা আপনাকে আপনার

    বিটকয়েনের মূল্য দেবে। বিটকয়েন বিক্রেতাদের জন্য এটি একটি খুব ভাল সুযোগ।
    এর সাথে, আপনি তাদের কাছে বর্তমান মূল্যে বিক্রি করতে পারেন। বিক্রেতা হিসাবে এটি আপনার সুবিধা।

    আরো অনেক বৈশিষ্ট্য আছে যা আপনাকে মুগ্ধ করবে।

    স্থানীয় বিটকয়েন

    স্থানীয় বিটকয়েন আরেকটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট যা বিটকয়েন বিনিময়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের শীর্ষে রয়েছে।

    আপনি চাইলে স্থানীয় বিটকয়েনের সাথে নতুন সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারেন।
    বাংলাদেশে তাদের বিটকয়েন বিনিময়ের ইতিহাস অনেক পুরনো এবং অনেক সমৃদ্ধ। এখন পর্যন্ত তাদের সম্পর্কে কেলেঙ্কারির কোন খবর পাওয়া যায়নি।
    এটি একটি বিদেশী ব্র্যান্ড যা বাংলাদেশে স্থানীয় পেমেন্ট পদ্ধতির সাহায্যে বিটকয়েন ব্যবসা করে। আপনি

    চাইলে স্থানীয় বিটকয়েনের কাছে আপনার বিটকয়েন বিক্রি করে বাংলাদেশি টাকায় রূপান্তর করতে পারেন।

    প্যাক্সফুল

    বাংলাদেশি মানি এক্সচেঞ্জ ওয়েবসাইটের আরেকটি বিশ্বস্ত বিটকয়েন। বাংলাদেশের অনেকের কাছে এরা প্রথম

    পছন্দ। তারা নিয়মিত খুব ভালো দামে বিটকয়েন কিনে।
    এছাড়াও, যারা তাদের কাছে বিটকয়েন বিক্রি করে তাদের বাংলাদেশী স্থানীয় পেমেন্ট পদ্ধতির সাহায্যে অর্থ

    প্রদান করা হয়। আপনি যদি বিটকয়েন বিক্রি করার জন্য একটি বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট খুঁজছেন তাহলে আপনি

    প্যাক্সফুলও বেছে নিতে পারেন। যাইহোক, বিটিসি থেকে বিডিটি আমাদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে।

    আমরা আপনার জন্য বাংলাদেশ থেকে সেরা কিছু বিটকয়েন এক্সচেঞ্জ ওয়েবসাইট বিবেচনা করেছি। এর মধ্যে ছিল তাদের পেমেন্ট ক্লিয়ারেন্সের সময়, অ্যাকাউন্ট খোলা কত সহজ, তাদের বিটকয়েনের হার কত।
    বিবেচিত সমস্ত বিষয়, BTC থেকে BDT এই তিনটি ওয়েবসাইটের মধ্যে অন্যতম সেরা। কিন্তু LocalBitcoin এবং Paxful এর মত অন্যরাও বেশ নির্ভরযোগ্য। যাইহোক, যদি আপনি খুব দ্রুত আপনার বিটকয়েন বিক্রি করে টাকা বিনিময় করতে চান, তাহলে BTC থেকে BDT আমাদের সুপারিশ হবে
    এগুলো অনুসরণ করলে আপনি সহজেই আপনার বিটকয়েনকে বাংলাদেশী টাকায় রূপান্তর করতে পারবেন। যাইহোক, যেকোনো ওয়েবসাইট থেকে বিটকয়েনের জন্য বাংলাদেশি অর্থ বিনিময় করার আগে আপনাকে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। এগুলি ভুল হওয়া উচিত নয়।

    ওয়েবসাইটটি আপনাকে যে বিটকয়েনের মূল্য দেবে তা জানুন। কতদিন আগে তারা সর্বশেষ বিটকয়েনের মূল্য

    আপডেট করেছে। আমরা জানি বিটকয়েনের দাম প্রতি মিনিটে পরিবর্তিত হয়। তাই যদি তারা সপ্তাহ বা দুই

    দিন আগে বিটকয়েনের মূল্য আপনাকে দিয়ে থাকে, তবে বর্তমান মূল্য দিয়ে এটি পরীক্ষা করুন।

    মনে রাখবেন যে তারা যে কোন সময় বিনিময় করতে পারে। যারা বাংলাদেশে বিটকয়েন বিক্রি করে এবং

    কিনে, তারা সব সময় বিটকয়েন কিনে না। কখনও কখনও দেখা যায় যে তারা সম্পূর্ণ কার্যকলাপ ম্যানুয়ালি

    পরিচালনা করে যার কারণে ব্যক্তিগত কারণে ব্যস্ত থাকলে তার ওয়েবসাইটের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। সুতরাং, আগে থেকে প্রাপ্যতা জেনে নিন ‘ওয়েবসাইট আপনাকে কতক্ষণ অর্থ প্রদান করবে। যাইহোক, আমরা যে তিনটি ওয়েবসাইটের পরামর্শ দিয়েছি তাতে এই ধরনের সমস্যা নেই।

    অবশ্যই, বিশ্বস্ত ওয়েবসাইটগুলির সাথে ডিল করুন। বিটকয়েন এমন একটি মুদ্রা যা একবার

    অবমূল্যায়িত হয়ে গেলে কোনভাবেই শোধ করা যাবে না। সুতরাং আপনি যে ব্যক্তির সাথে আচরণ

    করছেন তার সম্পর্কে পরীক্ষা করুন। এছাড়াও, তার আগের ইতিহাসে কোন কেলেঙ্কারির রেকর্ড আছে কিনা তা পরীক্ষা করুন।

    একবারে অনেক বেশি বিটকয়েন বিনিময় করবেন না। এটি প্রতারণার শিকার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। এই বিষয়টিও মাথায় রাখা দরকার।

    Recent Articles

    spot_img

    Related Stories

    Leave A Reply

    Please enter your comment!
    Please enter your name here